data-language="en">

কিভাবে YouTube এ Video Upload করে টাকা আয় করবেন? | How To Make Money With Video Upload On YouTube?

No comments
data-ad-format="auto"> অনলাইনে ঘরে বসে আয় করার অনেক উপায় আছে। আপনার যদি ইচ্ছা থাকে তাহলে ঘরে বসেই খুব সহজে কিছু টাকা উপার্জন করতে পারবেন। সম্প্রতি সময়ে অনলাইন থেকে টাকা উপার্জন করার মাধ্যম গুলির মধ্যে সবচেয়ে সহজ উপায় হলো YouTube এ ভিডিও আপলোড করে টাকা আয়। আপনিও খুব সহজেই YouTube থেকে টাকা উপার্জন করতে পারেন। আজ আমরা আপনাকে দেখাবো কিভাবে YouTube থেকে খুব সহজে টাকা উপার্জন করবেন।
ভিডিও তৈরীর জন্য আপনি দুটি উপায় অবলম্বন করতে পারেন। প্রথমটি হলো ভিডিও ক্যামেরা দিয়ে ভিডিও তৈরি করে YouTube এ আপলোড এবং ২য়টি হলো কম্পিউটারের সাহায্য নিয়ে বিভিন্ন ভিডিও Editing এর মাধ্যমে ভিডিও তৈরি করে করে YouTube এ আপলোড। তবে ভিডিও তৈরির আগে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যে, আপনার ভিডিওটি অবশ্যই মজাদার বা শিক্ষনীয় ও ভালো মানের হতে হবে। কারও কোন ভিডিও নকল করে কিংবা সামান্য পরিবর্তন করে কাজটি করা যাবে না। তাহলে আপনি YouTube এর কাছে কপিরাইটের দায়ে পেসে যেতে পারেন।
ইউটিউব থেকে কত আয় করা যায় #ইউটিউব থেকে আয় ২০১৬ #ইউটিউব থেকে আয় করার উপায় #ইউটিউবে আয় #ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম #কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করবেন? #ইউটিউব এডসেন্স #ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায়
কিভাবে YouTube এ Video Upload করে টাকা আয় করবেন?


বাংলাদেশ থেকে কি আয় করা সম্ভবঃ
আসলে YouTube থেকে এখনো বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় নাই টাকা উপার্জন করার জন্য। তবে আপনি যদি আয় করতে চান তাহলে করতে পারবেন। তার জন্য আপনাকে ইউটি্উব চ্যানেল এর Country পরিবর্তন করে Usa বা বাংলাদেশ ছাড়া YouTube Monetized সাপোর্টকৃত দেশগুলির যে কোন একটি দিতে হবে।

 কিভাবে আয় করবেনঃ

  1. YouTube Channel তৈরীঃ প্রথমেই আপনাকে Gmail ID এর মাধ্যমে একটি YouTube Channel তৈরী করে নিতে হবে। YouTube.Com এ গিয়ে Gmail ID এর মাধ্যমে Signup করলেই আপনার YouTube Channel তৈরী হয়ে যাবে।(YouTube Channel খুলুন মাত্র ২ মিনিটে ছবি সহ)
  2. YouTube Partner হওয়াঃ তারপর বামপাশের অপশন হতে My Channel এ ক্লিক করলে আপনার YouTube Channel টি দেখতে পাবেন। আপনার Channel টির নামের উপরে Video Manager নামে আরেকটি অপশন দেখতে পাবেন সেটিতে ক্লিক করুন। এখন বামপাশের Channel অপশনে ক্লিক করার পর ডানে অনেক অপশন দেখতে পাবেন। সেখানে আপনার নামের পাশে থাকা Partner হতে মোবাইল নাম্বার দিয়ে Partner Verified করতে হবে।
  3. ভিডিও আপলোড করাঃ এখন আপনার ভিডিওটি আপলোড করুন। তবে সাবধান কোন প্রকার কপি করা ভিডিও আপলোড করবেন না।সম্পুন্ন নিজের তৈরি করা ভিডিও আপলোড দিবেন। তা না হলে ইউটিউব যে কোন সময় আপনার চ্যানেল Disable করে দেবে সে কথা মাথায় কাখতে হবে, আর ভিডিও আপলোড এর সময় আপনার ভিডিও টি SEO করে নিবেন যাতে ভালো রেংক থাকে এবং বেশি view হয়।
  4. AdSense এ Apply করাঃ আপনার চ্যনেল এর জন্য ‍আপনি যদি AdSense এ Apply করতে চান তাহলে আপনার চ্যানেল আগে লাইপ টাইম view ১০,০০০ হতে হবে। ১০,০০০ view হওয়ার পর, এখন আপনাকে আপনার YouTube Channel এর মাধ্যমে Google AdSense এর জন্য আবেদন করতে হবে। এই AdSense এর মাধ্যমে আপনি টাকা উত্তোলন করবেন। এখন আবার বামপাশের Channel অপশন হতে Monetization অপশনে ক্লিক করে ডানপাশে Enable Monetization বাটন হতে Monetization একটিভ করে নিতে হবে। তারপর উপরের দিকে Monetization নামে আরেকটি অপশন পাবেন। সেখানে associate an AdSense account এ ক্লিক করে Next ক্লিক করে আপনার Gmail ID এর মাধ্যমে লগইন করে যাবতীয় তথ্য দিলেই আপনার AdSense Request চলে যাবে। এখন ২-৩ দিনের মধ্যে আপনার AdSense Approve এর মেইল আপনার ইনবক্সে চলে আসবে।
  5. ভিডিও Monetize করা: AdSense Approve হওয়ার পর আপনার সব কয়টি ভিডিও মনিটাউজ করতে হবে, মনিটাইজ না করলে আপনার ভিডিওতে এড দেখাবেনা।ভিডিও আপলোড দেওয়ার সময় ভিডিওটির নিচের দিকে Monetized অপশন দেখতে পাবেন। এখানে Monetize with ads অপশনে ঠিক চিহ্ন দিয়ে সেব করে দিলেই আপনার ভিডিওটিতে এখন থেকে Google বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দেখাবে। তবে সাবধান কোন প্রকার কপি করা ভিডিও আপলোড করবেন না।

 কিভাবে এই আয় বাড়াবেনঃ

  1. ভিডিওটির বর্ণনা দেয়াঃ নতুন ভিডিও আপলোড করার পর সাথে সাথে ভিডিওটি সম্পর্কে তার নিচে বর্ণনা দিয়ে দেবেন। তাহলে YouTube সহজে আপনার ভিডিওটি সম্পর্কে ধারনা পেয়ে যাবে। এতেকরে YouTube নির্ধারিত টপিক অনুযায়ী ভিজিটদের কাছে ভিডিওটি পৌছে দেবে।
  2. নিয়মিত ভিডিও তৈরীঃ নিয়মিত নিত্য নতুন ভালমানের ভিডিও আপলোড করার চেষ্টা করবেন। তাহলে আপনার Channel টির Viewer বাড়তে থাকবে। আর Viewer বাড়া মানেই হচ্ছে আপনার আয় বেড়ে যাওয়া।
  3. ভিডিও শেয়ার করাঃ ভিডিও পাবলিশ করার পর বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম, যেমন-ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাস ইত্যাদি সাইটগুলিতে আপনার ভিডিও শেয়ার করতে পারেন।
  4. ব্যাক লিংক তৈরীঃ আপনি যে বিষয় নিয়ে ভিডিও টিউটোরিয়াল বা ভিডিও তৈরী করছেন এরকম অন্য জনপ্রিয় সাইটগুলিতে আপনার ভিডিওটির লিংক দিয়ে দিতে পারেন। এতে করে সেখান থেকেও আপনার সাইটে প্রচুর ভিজিটর পেয়ে যাবেন।

ইতি কথাঃ যেহেতু YouTube হচ্ছে Google কোম্পানির একটি অংশ, সুতরাং আপনি চাইলে এখান থেকে আপনার পরিশ্রম কাজে লাগিয়ে বিশ্বস্ততার সাথে টাকা উপার্জন করতে পারেন। এর সব চাইতে বড় সুবিধা হচ্ছে আপনাকে কোন প্রকার Domain ও Hosting কোনটাই কিনতে হচ্ছে না। তাছাড়া YouTube এর মাধ্যমে খুব সহজেই Google AdSense অনুমোদন পাওয়া যায়। কাজেই আমার মনেহয় এটিই হচ্ছে অনলাইন থেকে টাকা আয় করার সবচেয়ে সহজ, ফ্রি এবং বিশ্বস্ত একটি উপায়।

TAG:ইউটিউব থেকে কত আয় করা যায় #ইউটিউব থেকে আয় ২০১৬ #ইউটিউব থেকে আয় করার উপায় #ইউটিউবে আয় #ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম #কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করবেন? #ইউটিউব এডসেন্স #ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় data-language="en">

No comments :

Post a Comment